আলু, পিয়াঁজ সহ নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসের দাম ক্রমশ উর্ধ্বমুখী

সেখ নুরুদ্দিন, সোনারপুর:
দীর্ঘ দিনের অর্থনৈতিক মন্দার টানপোড়নে নাভিশ্বাস উঠেছে আমজনতার। হয়তো কিছুটা হলেও স্বস্তির শ্বাস এক্ষেত্রে সরকারি চাকুরীজীবীদের। ধীরে ধীরে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হচ্ছে দেখে সুদিনের আশায় বুক বেঁধেছে মানুষ।দীর্ঘ লক ডাউনের জেরে কাজ হারিয়েছেন বহু মানুষ। কার্যত অনেকাংশ মানুষের রুজি-রোজগার বন্ধ। হাত পড়েছে যৎকিঞ্চিৎ সঞ্চিত ভাঁড়ারে।নুন আনতে পান্তা ফুরোয় এমন সব হত দরিদ্র মানুষের জীবন রীতিমতো করোনাতঙ্কের চেয়ে ভয়ানক দুর্বিষহ হয়ে উঠেছে জীবন। কেমন আছেন তারা? খোঁজ নেননি কেউই। কথা বললাম অনেকের সাথে। শুধু প্রত্যুত্তরে ভেসে এল.. সকরুণ আর্তনাদ-” এই ভাবে আর চলবে কদ্দিন? আর পারছি না।সোনারপুর, বারুইপুর শহর , শহরতলী, ও প্রান্তিক এলাকায় বাজারে ঘুরে দেখলাম অগ্নিমূল্য আলু, পিয়াঁজ, সব সব্জি। তার সাথে পাল্লা দিয়ে লাফিয়ে চলছে মাছ ও মাংস। সাধারণ মানুষের কাছে ভীষণ কষ্টকর হয়ে উঠছে দৈনন্দিন প্রয়োজনীয় বাজার সংগ্ৰহ। অবশ্য অনেকেই বলছেন, ভাগ্যিস রেশনিং ফ্রি করেছেন দিদি। না হয় অনাহারে মরতে হতো।পেট পূজার নৈবেদ্য জোগাড় করতে ব্যাগ হাতে সব বাবুর কপালে চিন্তার ভাঁজ।ইলিশের গন্ধ ভোজনরসিক বাঙালি কে আকুল করলেও,আকাশছোঁয়া দাম শুনেই অক্কাগুড়ুম।ক্রেতা-বিক্রেতা সুদিনের অপেক্ষায় প্রহর গুনছেন।রুদ্ধশ্বাস জীবনে স্বস্ ফেরাতে প্রশাসনিক ভাবে শহর ও -গ্রামে সুফল বাংলা স্টল তৈরীতে উদ্যোগ নিচ্ছে স্থানীয় প্রশাসন।সাধারণ মানুষের কাছে এই সুবিধা খুব শীঘ্রই মিলবে বলে আশা করা যায়।

শেয়ার করুন