করোনা আতঙ্কে ভীড় বাঁকুড়া মেডিক্যাল এ

নিজস্ব সংবাদদাতা,বাঁকুড়াঃ এই মুহূর্তে বিশ্ব জুড়ে আতঙ্কের নাম ‘করোনা ভাইরাস’। আর সেই আতঙ্ক থেকে দূরে নেই দক্ষিণের জেলা বাঁকুড়াও। বিদেশ ফেরৎ হোক বা কর্মসূত্রে পাশের কোন রাজ্যে থাকা মানুষ বাড়ি ফিরলেই করোনা আতঙ্ক তাড়া করে ফিরছে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের প্রতিবেশীদের। ফলে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার কোন নমুনা দেখা না গেলেও তাদের হাসপাতালে যেতে বাধ্য করছেন এলাকার মানুষ। ফলে প্রতিদিন ভীড় বাড়ছে বাঁকুড়া সম্মিলনী মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালে।

গত মঙ্গলবার নেপাল থেকে ফেরা বিষ্ণুপুর এলাকার এক মহিলা বলেন, করোনা ভাইরাস আক্রান্ত হওয়ার প্রাথমিক কোন নমুনা না পাওয়া গেলেও যেহেতু আমরা নেপাল থেকে ফিরেছি, তাই পাড়া প্রতিবেশীদের চাপে আমরা হাসপাতালে আসতে বাধ্য হয়েছি। প্রথমে বিষ্ণুপুর জেলা হাসপাতালে গেলে সেখানে কোন পরীক্ষা না করেই বাঁকুড়া সম্মিলনী মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে বলে তিনি দাবী করেন।

বাঁকুড়া সম্মিলনী মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালে দাঁড়িয়ে একই কথা বলেন প্রতিবেশী রাজ্য ঝাড়খণ্ডের টাটা থেকে ফেরা তালডাংরার সাবড়াকোন এলাকার এক যুবকের দাদা। তিনি বলেন, ভাই টাটা থেকে জ্বর, সর্দি নিয়ে ফিরেছিল। স্থানীয় হাসপাতালে নিয়ে গেলে সেখানকার কর্তব্যরত এক ‘দিদিমনি’ এক প্রকার জোর করেই এখানে পাঠালেন বলে তিনি জানান।

এই মুহূর্তে করোনা আতঙ্কে রোজ ভীড় বাড়ছে বাঁকুড়া সম্মিলনী মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালে। সুপার গৌতম নারায়ণ সরকার বলেন, জেলার সব কটি হাসপাতালেই আইসোলেশন বেড রয়েছে। তবুও সবাই এখানেই আসছেন। ফলে সাধারণ রোগীদের পরিষেবা দেওয়ার ক্ষেত্রে সমস্যা তৈরী হচ্ছে। এই মুহূর্তে করোনা পরীক্ষার জন্য প্রয়োজনীয় ‘কিট’ নেই। সামান্য সর্দি কাশি নিয়ে হাসপাতালে সবাই এলে সমস্যা তৈরী হচ্ছে বলে তিনি জানান।

শেয়ার করুন