গরমে সুস্থ থাকতে কেন খাবেন আনারস ?


রামকৄষ্ণ চ্যাটার্জী: আনারসকে ফল হিসেবে আমরা কিন্তু খুব একটা পাত্তা দিই না। কিন্তু আনারসের গুণাগুণের সম্পর্কে জানলে সত্যি আশ্চর্য হবেন । আনারস বিশ্বের অন্যতম সেরা ফলের মর্যাদা পেয়ে এসেছে । পুষ্টি গুণে আনারস অতুলনীয় । এবার জেনে নিন কি রাসায়নিক উপাদান থাকে আনারসে ?
আনারসের পাতা ও অপক্ক ফলে থাকে স্টেরলস, ট্রাইটার্পিনস, আর্গোস্টেরল পার অক্সাইড, বিটা-সিটাস্টেরল, ক্যাম্পেস্টেরল, স্টিগমাস্টেরল ইত্যাদি। কান্ডে থাকে প্রোটিওলাইটিক এনজাইম, ব্রোমেলিন, স্টার্চ, অ্যানাসিক এসিড, ক্যাফিক এবং কমারিক এসিডের গিøসারিল ইস্টার। ফলে তাকে পলিফেনলস, ফেনলিক এসিড অ্যাসকরবিক এসিড, ভিটামিন এ, বি, সি, খনিজ পদার্থ ও উদ্বায়ী সুগন্ধকারী উপাদান।
সাধারণত আনারস যেসব উপকার পাওয়া যায় তা হলো গরম বা ঠাণ্ডা লেগে জ্বর, জ্বর জ্বর ভাব দূর করে এই ফল । এতে রয়েছে ব্যথা দূরকারী উপাদান । তাই শরীরের ব্যথা দূর করার জন্য এর অবদান গুরুত্বপূর্ণ । আনারস কৃমিনাশক । কৃমি দূর করার জন্য খালি পেটে সকালবেলা ঘুম থেকে উঠেই আনারস খাওয়া উচিত । দেহে রক্ত জমাট বাঁধতে বাধা দেয় এই ফল । ফলে শিরা ধমনির (রক্তবাহী নালি) দেয়ালে রক্ত না জমার জন্য সারা শরীরে সঠিকভাবে রক্ত প্রবাহিত হতে পারে । হৃৎপিণ্ড আমাদের শরীরে অক্সিজেনযুক্ত রক্ত সরব্রাহ করে । আনারস রক্ত পরিস্কার করে হৃৎপিণ্ডকে কাজ করতে সাহায্য করে । এতে রয়েছে প্রচুর ভিটামিন ‘সি’ । জিহ্বা, তালু, দাঁত ও মাড়ি সহ মুখের যে কোন অসুখের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করে আনারস । এতে রয়েছে খনিজ লবণ ম্যাংগানিজ , যা দাঁত , হাড় ও চুলকে করে শক্তিশালী । গবেষণা করে দেখা গেছে , নিয়মিত আনারস খান এমন ব্যক্তিদের ঠাণ্ডা লাগা, গলা ব্যথা, সাইনোসাইটিস জাতীয় অসুখগুলো কম হয় । এতে রয়েছে প্রচুর ক্যালোরি যা আমাদের শক্তি জোগায় । প্রোটিন সমৃদ্ধ ফলটি ত্বকের মৃত কোষ দূর করে ত্বককে কুঁচকে যাওয়া থেকে বাঁচায় । আনারস টাটকা খাওয়াই ভালো । আনারস জ্বরের ও জন্ডিস রোগের জন্য খুব উপকারী । দেহের তৈলাক্ত ত্বক, ব্রণ সহ সব রূপ লাবণ্যে আনারসের যথেষ্ট কদর রয়েছে ।

শেয়ার করুন