তৃণমূলের শেষের শুরু : বিজেপির রাজ্য সহ সভাপতি রাজু বন্দোপাধ্যায়


তিমিরকান্তি পতি, বাঁকুড়াঃ’তৃণমূলের শেষের শুরু’ মঙ্গলবার বাঁকুড়ার বিষ্ণুপুরে দলের সাংগঠনিক বৈঠকে যোগ দিতে এসে এই দাবী করলেন বিজেপির রাজ্য সহ সভাপতি ও দায়িত্বপ্রাপ্ত অবজার্ভার রাজু বন্দ্যোপাধ্যায়। সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে এদিন তিনি আরো বলেন,’মমতা ব্যানার্জীর পুলিশ ও তারা গুণ্ডারা রাজ্য জুড়ে সাধারণ মানুষ ও মা বোনেদের উপর আক্রমণ নামিয়ে এসেছে। একই সঙ্গে শাসক দলের লাগাতার দূর্ণীতির বিরুদ্ধে গিয়ে দলে দলে মানুষ বিজেপির পতাকা তলে যোগ দিচ্ছেন। একই সঙ্গে তিনি বলেন, দলের যুব মোর্চার সময় থেকে এই জেলার দায়িত্বে রয়েছি। লোকসভা ভোটে এই জেলার দুই আসনে জয় লাভের পর আগামী বিধানসভা ভোটেও সব কটি আসন বিজেপি দখল করবে বলে তিনি দাবী করেন।
করোনা সংক্রমণ ঠেকাতে রাজ্য সরকারের লক ডাউন দিনক্ষণ ঘোষণা সম্পর্কে সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে মুখ্যমন্ত্রীকে ‘ম্যাজিশিয়ান’ বলে কটাক্ষ করে তিনি বলেন, এর কোন বৈজ্ঞানিক ভিত্তি নেই। পূর্বঘোষিত কর্মসূচী অনুষারে আগামী ৫ আগষ্ট রাম মন্দিরের শিলান্যাস হবে। ঐ দিন মানুষের ভাবাবেগকে গুরুত্ব না দিয়ে লক ডাউন ঘোষণা করেছেন। কারণ তিনি চাইছেন রাজ্যে ‘অরাজকতা ও অশান্তি সৃষ্টি করতে’। আর এই ধরণের কোন ঘটনা ঘটলে তার জন্য মূখ্যমন্ত্রী দায়ী থাকবেন। এছাড়াও বাংলার মানুষ মুখ্যমন্ত্রীকে ‘লক’ করে দিয়েছেন এবার ‘ডাউন’ করে দেবেন বলেও তিনি দাবী করেন।

এদিন তৃণমূল ও কংগ্রেস ছেড়ে ইন্দাস ব্লক এলাকার ৫০ টি পরিবার তাদের দলে যোগ দিয়েছেন। ঐ কর্মীদের হাতে দলীয় পতাকা তুলে দেন বিজেপির রাজ্য সহ সভাপতি রাজু ব্যানার্জী নিজে বলে বিজেপির বিষ্ণুপুর সাংগঠনিক জেলা সূত্রে দাবী করা হয়েছে। দলের সাংগঠনিক সভায় যোগ দেওয়ার আগে এদিন রাজু ব্যানার্জী করোনা আক্রান্ত দলের সর্বভারতীয় নেতা ও স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী অমিত শাহের দ্রুত সুস্থতা কামনা করে বিষ্ণুপুর শহরের ছিন্নমস্তা মন্দিরে পুজো দেন। তাঁর সঙ্গে এদিন সর্বক্ষণ উপস্থিত ছিলেন দলের বিষ্ণুপুর সাংগঠনিক জেলার বর্তমান ও প্রাক্তন সভাপতি যথাক্রমে হরকালি প্রতিহার, স্বপন ঘোষ, দলের অবজার্ভার পার্থ কুণ্ডু প্রমুখ।

শেয়ার করুন