পণ না পেয়ে গৃহবধূকে পিটিয়ে খুন : তদন্তে পুলিশ


নিজস্ব সংবাদদাতা, বাঁকুড়াঃ পণের দাবীতে এক গৃহবধূকে পিটিয়ে খুনের অভিযোগ উঠলো স্বামী সহ শ্বশুর বাড়ির বিরুদ্ধে। মৃতার নাম উমা মাল গোপ (২১)। বাঁকুড়ার ওন্দা থানা এলাকার রামসাগর-তেলিবেড়িয়ার ঘটনা।
স্থানীয় সূত্রে খবর, তিন বছর আগে ওন্দার রামসাগর-তেলিবেড়িয়ার রাজীব মাল গোপের সঙ্গে বিষ্ণুপুরের বাঁকাদহ এলাকার মাজুরিয়া গ্রামের উমা মাজুরির বিয়ে হয়। তাদের একটি কন্যা সন্তান রয়েছে। মৃতার বাপের বাড়ির তরফে অভিযোগ, বিয়ের সময় নগদ ২ লক্ষ টাকা, গহনা ও অন্যান্য দান সামগ্রী দেওয়া হয়। তারপর তাদের মেয়ে হওয়ার পর থেকেই আরো টাকার জন্য চাপ দিত ‘জামাই’ রাজীব মাল গোপ। বাপের বাড়ি থেকে টাকা না আনার কারণে প্রায়শই তাদের মেয়ের উপর শারিরীক ও মানসিক নির্যাতন চালানো হতো বলে অভিযোগ।
মৃতার পিসতুতো দাদা অমিত দণ্ডপাট বলেন, বুধবার গভীর রাতে মেয়ে বিষ খেয়েছে ও বিষ্ণুপুর সুপার স্পেশ্যালিটি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে জানিয়ে জামাই ফোন করে। হাসপাতালে এসে জানতে পারি বোন মারা গেছে। আত্মহত্যা নয়, বোনকে পিটিয়ে খুন করা হয়েছে বলে তিনি দাবী করেন। একই সঙ্গে বিষয়টি পুলিশ লিখিত অভিযোগ আকারে জানানো হয়েছে বলে তিনি জানান।
মৃতা উমা মাজুরির বাবা বংশী মাজুরি বলেন, নগদ দু’লাখ টাকা ও গহনা দিয়ে মেয়ের বিয়ে দিয়েছিলাম। তারপরেও আরো টাকার জন্য মেয়ের শ্বশুর বাড়ির লোকজন তার উপর অত্যাচার চালাতো। একই সঙ্গে তার মেয়েকে পিটিয়ে খুন করে হাসপাতালে ফেলে জামাই চম্পট দিয়েছে বলে তিনি দাবি করেন।
পুলিশের পক্ষ থেকে মৃতদেহটি বিষ্ণুপুর জেলা হাসপাতালে ময়না তদন্তের জন্য পাঠানো হয়েছে ও ঘটনার তদন্ত চলছে বলে জানানো হয়েছে।

শেয়ার করুন