বৌভাতের অনুষ্ঠান, নাকি রক্তদান শিবির ! বাজিমাত রাকেশ-শ্রাবনীর।

ভাস্কর চক্রবর্তী, শিলিগুড়িঃ ইদানিংকালে আমাদের চারপাশে যে অরাজকতার সৃষ্টি হয়েছে তাতে প্রায় এক শ্রেণীর মানুষের রাতের ঘুম পগার পার।হিংসা-বিদ্বেষ-দলাদলি প্রায় সব জায়গায় বর্তমান। কোথাও রাজনৈতিক অরাজকতা তো কোথাও আবার সাম্প্রদায়িক বিভেদ। আমরা সকলেই ছোটবেলায় বিদ্রোহী কবি কাজী নজরুল ইসলামের একটি কবিতা পড়েছিলাম, “এক বৃন্তে দুটি কুসুম, হিন্দু-মুসলমান”। কবির কল্পনা কবির কবিতাতেই সীমাবদ্ধ, বাস্তবে তা বড়ই কঠিন। কিন্তু কখনো কি ভেবে দেখেছি ধর্ম জাত আলাদা তো বটে কিন্তু শরীরের রক্তটাও কি আলাদা?

রক্তের রং কিন্তু সেই লাল-ই। বিপদ যখন সম্মুখে দন্ডায়মান বিভেদ ভুলে একে অপরের পাশে দাঁড়িয়ে প্রাণদানের নজির দৃষ্টান্ত আমাদের প্রায়শই গোচরাধীন।

আরও এক নতুন ছবি আজ ধরা পড়ল শহর শিলিগুড়ির বুকে। শহরের ঘোঘমালি স্থিত অতি পরিচিত স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা ‘ইউনিক সোশ্যাল ওয়েলফেয়ার সোসাইটি’য়ের এক সদস্য সদ্য বিবাহিত জীবনে পা রেখেছেন। তাঁর নাম রাকেশ দত্ত; আজ রাকেশের বৌভাত। সাধারণত এই দিনটিতে আমরা চিরাচরিতভাবে সেই একই ছবি দেখে আসছি। ইদানিং কালে দু’একটি আলাদা চিত্রের ইতিমধ্যে ধরা পড়ে।

রাকেশের কিন্তু সেই উল্টো পথের পথিকদের মধ্যে অন্যতম। মানুষের পাশে দাঁড়ানো এই সংস্থার সদস্য রাকেশ তাঁর বৌভাতের অনুষ্ঠানের দিনেও দাঁড়ালো সেই মানুষেরই পাশে। সকাল থেকে বাড়িতে আয়োজন করে রক্তদান শিবিরের। এই শিবিরে সংস্থার সকল সদস্য ছাড়াও বিভিন্ন সাধারণ মানুষেরাও উপস্থিত ছিলেন। রক্তের যে চাহিদা কতখানি তা মাথায় রেখে আজকের এই শিবির। এছাড়াও থ্যালাসেমিয়া নিয়েও সচেতন মূলক বার্তা সকলের সামনে তুলে ধরা হয়। এহেন কর্মসূচি শিলিগুড়িতে এক উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত সকল মানুষের কাছে।

রক্তদান শিবিরে যোগদান করতে আসা সকল মানুষেরা প্রশংসায় পঞ্চমুখ ছাড়াও নবদম্পতির আগামী দিনগুলি যাতে সুখে-শান্তিতে কাটে তার আশীর্বাদও করেছেন দু’হাত তুলে।

এদিন নবদম্পতি রাকেশ দত্ত ও শ্রাবনী দত্ত জানান, প্রতিটি বিয়েতে মানুষ ভালো উপহার তো পায়ই, তবে এই বিয়েতে ভালো কোনো উপহারের দরকার তাদের নেই। যদি উপহার দিতে একান্তই ইচ্ছে করে, তবে স্বেচ্ছায় একটু রক্ত দিন। যা বহু মানুষকে নতুন জীবন উপহার দিতে সক্ষম। আর আজকের এই আয়োজনের মধ্য দিয়ে শত গন্ডির যাত্রাপথ পার করা হয়। যা রাকেশ ও শ্রাবণীর কাছে সবচাইতে বড় উপহার।

পাশাপাশি, আলিপুরদুয়ার জেলার কামাখ্যাগুড়ি থেকে থ্যালাসেমিয়া নিয়ে সচেতনতা বৃদ্ধি করতে আসা শ্যামাপ্রসাদ দত্ত রায় আমাদের জানান, থ্যালাসেমিয়া এমন এক রোগ যা গতানুগতিক ভাবধারার বহমান। আর বিবাহের আগে কুষ্ঠি বিচার না করে যদি নবদম্পতি থ্যালাসিমিয়া পরীক্ষা করে তবে যে ছোট্ট জীবনটি নতুন করে পৃথিবীর আলো দেখতে উদ্যত হয় সে বেঁচে যাবে এমন মারন রোগের হাত থেকে।

অন্যদিকে, শিলিগুড়ি ইউনিক সোশ্যাল ওয়েলফেয়ার সোসাইটির পক্ষে মলয় দে জানান, নবদম্পতিকে অনেকেই অনেক উপহার দেবে, কিন্তু পার্থিব উপঢৌকনের বদলে যদি অপার্থিব সুখ দেওয়া যায় তবে কেমন হয়? ঠিক এই প্রশ্নের থেকেই পরিকল্পনা আসে এমন আয়োজনের। মলয় বাবু আরও জানান, প্রতিবারই কিছু না কিছু নব উদ্যোগ নিয়েই চলেছে শিলিগুড়ি ইউনিক সোশ্যাল ওয়েলফেয়ার সোসাইটি; তারই অন্যতম এক দৃষ্টান্ত আজকের এই বৌভাতে রক্তদান শিবির অনুষ্ঠান।




%d bloggers like this: