শ্বশুর বাড়ির এলাকা থেকে উদ্ধার জামাই এর ঝুলন্ত মরদেহ


নিজস্ব সংবাদদাতা পূর্ব মেদিনীপুর: শ্বশুর বাড়ির এলাকায় জামাই এর ঝুলন্ত দেহ উদ্ধারের ঘটনায় চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে পূর্ব মেদিনীপুর জেলার মহিষাদলে। মৃত ব্যক্তির নাম বিশ্বজিৎ মাইতি, বয়স আনুমানিক ৩০ বছর, জানা গেছে
প্রায় ১০ বছরের বিয়ে হয় বিশ্বজিতের। রয়েছে বছর পাঁচেকের একটি মেয়ে রয়েছে বিশ্বজিতের। কিন্তু পরিবারে প্রায়শই লেগে থাকত অশান্তি। এই কারনেই পূর্ব মেদিনীপুরের মহিষাদল থানার কালিকাকুন্ডু গ্রামের স্বামীর ঘর ছেড়ে ওই থানা এলাকারই মছলন্দপুরে বাপের বাড়িতে চলে আসে গৃহবধূ ঝর্না মাজি। কিন্তু তারপরেই যুবক জানতে পারে তাঁর স্ত্রীকে আবারও চুপিসাড়ে বিয়ে দিয়ে দিয়েছে শ্বশুর বাড়ির লোকেরা। এরই প্রতিবাদ জানাতে গতকাল বৃহস্পতিবার বেলার দিকে শ্বশুর বাড়িতে ছুটে এসেছিল বিশ্বজিৎ মাইতি (৩০)। কিন্তু দিনভর চেষ্টার পরেও তাঁর স্ত্রীর কোথায় বিয়ে হয়েছে তা উদ্ধার করতে পারেনি ওই যুবক। এরপর শুক্রবার সকালে রহস্য জনক ভাবে মছলন্দপুরে রাস্তার পাশ থেকে উদ্ধার হয়েছে বিশ্বজিতের নিথর দেহ। খবর পেয়েই মহিষাদল থানার পুলিশ ছুটে যায় ঘটনাস্থলে। পুলিশ গিয়ে মৃতদেহটিকে উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে। সূত্রের খবর, রাস্তার পাশের একটি সরু সুপারি গাছের সঙ্গে ওই যুবকের গলায় সরু নাইলন দড়ি ফাঁস লাগানো অবস্থায় পাওয়া গিয়েছে। তাঁর মাথায় আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। যার জেরে ঘটনা স্থলে সামান্য রক্ত পড়ে রয়েছে। ঘটনার বিস্তারিত জানার পরেই এই ঘটনার সত্য অনুসন্ধানে জোরদার তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ। তবে এই ঘটনার বিষয়ে মছলন্দপুর গ্রামের কোনও ব্যক্তি মুখ খুলতে রাজি হয়নি। ইতিমধ্যে পুলিশ জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ওই যুবকের শ্বশুর কৃষ্ণ প্রসাস দাসকে আটক করে থানায় এনে জিজ্ঞাসাবাদ শুরু করেছে। সেই সঙ্গে দেহটিকে ময়না তদন্তের জন্য হলদিয়া মহকুমা হাসপাতালে পাঠিয়েছে পুলিশ।।

শেয়ার করুন