হিন্দু মুসলিম মিলেই কালীপুজো আয়োজন:সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির অনন্য নজির বংশীহারিতে

জয়দীপ মৈত্র,দক্ষিণ দিনাজপুরঃ সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির অনন্য ছবি ধরা পড়ল দক্ষিন দিনাজপুরে ৷ বংশীহারী ব্লকেই ৫০০ বছর ধরে হিন্দু-মুসলিম একত্রে কালী পুজো করে আসছে। ৫০০ বছর ধরে বিবিহার গ্রামে মুসলিম ও হিন্দুরা একত্রে আয়োজন করেন কালীপুজোর। দক্ষিণ দিনাজপুর জেলার বংশীহারী ব্লকের বীবিহার গ্রামে প্রায় ৫০০ বছর ধরে মুসলিম হিন্দু দুই সম্প্রদায়ের যৌথ উদ্যোগে আয়োজিত হয়ে আসছে কালীপুজো।
জানা যায় বহু বছর পূর্বে ইংরেজ আমলে এলাকার বাসিন্দা দশরথ সিং প্রথম এই কালী পুজোর শুভ সূচনা করেছিলেন। তারপর মাঝে আর্থিক সংকটের জেরে কিছুদিনের জন্য কালীপুজো বন্ধ হয়ে যায়। লোকমুখে প্রচলিত রয়েছে বিবিহার গ্রামের কালী পুজো বন্ধ হয়ে যাওয়ার পর থেকেই নানান সমস্যা দেখা দিতে থাকে এলাকায়। তারপর প্রায় এক প্রজন্ম পরে হরিচরণ সিং পুনরায় এই কালীপুজো চালু করেন। তারপর থেকেই প্রত্যেক বছর সাম্প্রদায়িক ভেদাভেদ ভুলে দীপাবলির রাতে গ্রামের মুসলিম ও হিন্দু সম্প্রদায়ের মানুষ একত্রে এই কালীপুজোতে আনন্দে মেতে ওঠেন।
জানা গিয়েছে একই দিনে পুজোর পর অমাবস্যা তিথি শেষ হলে মন্দির পার্শ্ববর্তী পুকুরে বিসর্জন দেওয়া হয় জাগ্রত কালী মাতার মূর্তিকে। পাশাপাশি পাঠা ও পায়রা বলির প্রচলন রয়েছে।
দেশজুড়ে যেখানে সাম্প্রদায়িকতা ও অসহিষ্ণুতার অভিযোগ ও পাল্টা অভিযোগ। ঠিক সেই জায়গায় বিবিহার গ্রামের বাসিন্দারা বহু বছর ধরে হিন্দু-মুসলিম একত্রে কালী পুজোর মাধ্যমে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির অনন্য নজির হয়ে থাকবে।




%d bloggers like this: