মিনিটে ৫৭১টি বক্সিং পাঞ্চ, গোল্ডেন বুক অফ ওয়ার্ল্ড রেকর্ডসে সাত বছরের ভারতীয়

নিজস্ব প্রতিবেদন: মাত্র ৭ বছর বয়েসে বক্সিংয়ে বিস্ময়কর নজির। এক মিনিটে ৫৭১টি বক্সিং পাঞ্চ, এই বিস্ময় বালককে হারাতে ভারতীয় কেন, আবিশ্ব বহু বক্সারকেই বেগ পেতে হবে। হরিয়ানার মুখ্যমন্ত্রী মনোহরলাল খট্টর ট্যুইট করে এ কথা জানান। তিনি জানান, সোনপাটের মার্টিন মালিক সাত বছর বয়সে এক মিনিটে ৫৭১টি বক্সিং পাঞ্চ মেরে গোল্ডেন বুক অফ ওয়ার্ল্ড রেকর্ডস-এ নিজের নাম তুলেছে।সেই ছোট্ট বিস্ময়কর বালককে শুভেচ্ছা ও আশীর্বাদ করেন তিনি। দু’মাস আগে মার্টিন মালিক ইন্ডিয়া বুক অফ রেকর্ডসে নিজের নাম লিখিয়েছিল।

জানা গিয়েছে, মালিক সোনিপাট জেলার বিদল হল গ্রামের বাসিন্দা। সাত বছর বয়সে সে বিস্ময়কর বালক হয়ে উঠেছে। অতীতকে ছাপিয়ে সে আগে এগিয়েছে। ১ মিনিটে ৫৭১টি বক্সিং ঘুষি মেরে গোটা বিশ্বে নিজেকে খ্যাত করেছে। গোল্ডেন বুক অফ ওয়ার্ল্ড রেকর্ডসের দুনিয়ায় পা রাখছে এই বিস্ময় বালক। এরপর এশিয়া বুক অফ রেকর্ডসে নিজের নাম তালিকাভুক্ত করে। লকডাউনকে পুরোপুরি কাজে লাগিয়ে আজ সে এখানে পৌঁছেছে, বলে জানান মার্টিনের বাবা। ঘরে লাগাতার অনুশীলন করে গিয়েছিল মার্টিন। তার এই অবিশ্বাস্য রেকর্ড ভাঙা খুব সহজ হবে না বলেই মনে করছেন অনেকে।

মার্টিন-এর দৃঢ় চেষ্টা আজ মার্টিনকে সফলতার চূড়ায় পৌঁছে নিয়ে গিয়েছে। তার কঠিন অনুশীলনের ফল মিলেছে হাতেনাতে। মার্টিনের কথা শুনে এখন সকলেই অবাক। এতো ছোট বয়সে অবিশ্বাস্য রেকর্ড প্রশংসা কুড়িয়েছে সকলের কাছ থেকে। লকডাউনে ঘরে মন বসছিল না মার্টিনের। তাই তার বাবা তার জন্য গ্লাভস এনে দেন। মার্টিনের আগ্রহ দেখে পরবর্তীকালে তার বাবা তার জন্য পুরো সেট নিয়ে আসেন। প্রতিদিন অনুশীলনের মাধ্যমে ঘুষি মারার সংখ্যা বাড়াচ্ছিল মার্টিন। আর শেষপর্যন্ত তা বেড়ে এক মিনিটে ৫৭১টি বক্সিং- এ পৌঁছায়। মার্টিনের এই অসাধ্য সাধনে খুশি তার গোটা পরিবার।

শেয়ার করুন