মিসম্যাচটাই আমাদের সম্পর্কের বাঁধন: অনসুয়া সামন্ত

এসপ্লাসনিউজ,হার্ডটক:
এসপ্লাসনিউজ এর পক্ষ থেকে তোমাকে জানাই শুভ নববর্ষের শুভেচ্ছা ও আন্তরিক অভিনন্দন ।

প্রশ্ন : এখন তো লকডাউন চলছে। সারাদিন কিভাবে কাটাচ্ছ?

উত্তর : কাজের মানুষদের সারাক্ষণ ঘরে বসে থাকলে খারাপ লাগাটা স্বাভাবিক। কিন্তু লকডাউনে তো ঘরে বসে থাকতেই হবে । কিন্তু শিল্প মনস্কতায় লকডাউন কখনো হয় না। আমি লিখতে , আবৃত্তি করতে, পড়তে ভালোবাসি। কবিতা ,গল্প লিখে , যোগা করেই কেটে যাচ্ছে। তাছাড়া আমরা দুজনে এতটা সময় কখনও পাইনি , এই সময়ে দুজনকে আরো ভালোভাবে চিনতে , বুঝতে পারছি। এটা হয়তো উপরি পাওনা।

প্রশ্ন: তুমি অভিনেত্রীর পাশাপাশি একজন ভালো ডিরেক্টরও। এই দুটো দিক কিভাবে মেইনটেইন করছ?

ভিডিও দেখুন :

উত্তর: যখন অভিনেত্রী হিসেবে থাকি তখন অভিনয়টাই করি , যখন ডিরেক্টর তখন নির্দেশনার দিকে মনোযোগ দেই। তবে কিছুক্ষেত্রে এমন হয়েছে যে দুটোই করতে হচ্ছে , যা সত্যি এক অন্যরকম অনুভুতি এবং তাতে সফল হয়েছি । হয়তো ঈশ্বরের আশির্বাদের জন্যই সম্ভব। দুটোই খুব এনজয় করি।

প্রশ্ন : তুমি অভিনয়কেই কেন প্রফেশন হিসেবে বেছে নিলে?

উত্তর: খুব ছোটবেলায় থেকে , গান নাচ নাটক করছি , তখন থেকেই ইচ্ছে যে আমি অভিনেত্রী হব।

প্রশ্ন : অভিনয়ে আসার পর মনোজিৎ দাদার সাথে বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হলে , এই ব্যাপারে কিছু বলো।

উত্তর: অডিশন নিতে গিয়ে পরিচয়। তারপর বন্ধুত্ব। বিভিন্ন বিপদে দুজন দুজনের পাশে দাঁড়ানো । এভাবেই পারিবারিক সম্মতিতে বিয়ে। ও অনেকটা ঠান্ডা মাথার মানুষ, আমি একটু রাগি। হয়তো মিসম্যাচটাই আমাদের সম্পর্কের বাঁধন।

প্রশ্ন : তোমাদের সম্পর্কটা খুব মিষ্টি। এটা ঠিক কিভাবে মেইনটেইন কর?

উত্তর: আসলে আমাদের মাঝে প্রেমটা তো হয়নি, তাই হয়তো মিষ্টি। সেই প্রেমের অনুভূতি খুঁজে বেড়াই় প্রতিনিয়ত। দুজনের মধ্যে ঝগড়া হয় প্রচুর। আবার মিটেও যায় একসময়। প্রেমটা হয়নি ওটাই বোধহয় এর চাবিকাঠি। আমরা চেষ্টা করি প্রেমটা যেন হোক।

প্রশ্ন : কয়েক বছর গ্যাপ দিয়ে আবার সবটা শুরু, এই ব্যাপারে কিছু বল?

উত্তর: শিল্পী বসে থাকলে তাকে অবসাদ গ্রাস করে। ঐ সময়ে আমি কিছু লেখালেখি করতাম। সবসময় পজেটিভ থাকার চেষ্টা করতাম। তারপর নটি বিনোদিনী করার পরে আমি সত্যিই অসম্ভব ভালো লেগেছিল। নিজেই কিছু লেখালেখি করছিলাম।

প্রশ্ন : নেক্সট প্রজেক্ট কি ?

উত্তর : আমাদের একটা ফেস্টিভ্যাল এর জন্য শর্টফিল্ম এর কাজ চলছিল। লকডাউনের জন্য কাজ বন্ধ। একটা অন্যরকম গল্প নিয়ে এই শর্টফিল্মটি । একটা উড়িয়া, আর দুটো বাংলা ছবির অফার আছে সবই অভিনেত্রী হিসেবে, তাই নিজের ছবির কাজ আপাতত স্থগিত।

প্রশ্ন : করোনায় যে লকডাউনের ফলে সবার আর্থিক টানাপোড়েন চলছে , এই সম্পর্কে তোমার মেসেজ কি ?

উত্তর : যাদের কন্ট্রিবিউট এর ক্ষমতা আছে তারা অবশ্যই এটা নিয়ে ভাবুন। ভবিষ্যতে অর্থনৈতিক মন্দা সামাল দেয়া খুব সমস্যা হবে। শিল্পী মহলও সমস্যার সম্মুখীন হবে আগামীতে। সুতরাং , অর্থনৈতিক ব্যবস্থা সেভাবে ভেঙ্গে পড়ার আগে সামর্থ্য অনুযায়ী সবারই এগিয়ে আসা উচিত।

প্রশ্ন : অবাধ্য জনগণের উদ্দেশ্যে সচেতনতার বার্তা কি হতে পারে?

উত্তর: জনগণের উদ্দেশ্যে একটা কথাই বলার , এই সংকটময় পরিস্থিতিতে সবার ঘরে থাকা উচিত। মেলামেশা কম হলেই এই মহামারী মোকাবেলা সম্ভব। আপনারা আপনাদের পরিবার প্রিয়জনদের সুস্থ রাখতে চাইলে ঘরে থাকুক। বিশেষ প্রয়োজন ছাড়া বাড়ির বাইরে বেরোবেন‌ না। পরিবার প্রিয়জনদের সঙ্গে সময় কাটান। হাত অবশ্যই ধোয়া উচিত, পুষ্টিগুণ যুক্ত খাবার খাওয়া উচিত।

শেয়ার করুন