গোটা ধারনাই বদলে দেবে, বিশ্বের সবচেয়ে প্রাচীনতম এই মন্দির !

শ্রীশা চৌধুরী: অবশেষে খোঁজ মিলেছে বিশ্বের সবচেয়ে প্রাচীনতম মন্দিরের ৷ বিশেষজ্ঞদের দাবী  প্রস্তর যুগেরও ৬০০০ বছর আগে বানানো হয়েছিল এই মন্দির ৷ ‘গবেকলি টেপ’ নামের এই মন্দিরটি  ১৯৯৪ সালে টার্কিতে প্রথম আবিস্কৃত হয় ৷
গবেকলি টেপ এক প্রাচীনতম  বৃহৎ মন্দির ৷মন্দিরটি থাম দ্বারা নির্মিত যা বড় বড় পাথরের চাঁই দ্বারা সুসজ্জিত করা হয়েছে। থাম গুলো ঘিরে সুসজ্জিত করা হয়েছে সিংহ, বিছে ও শকুনের জটিল ভাস্কর্য দিয়ে ৷ কিন্তু সাধারণ সৌন্দর্যের থেকে এটি একটি সুন্দর থেকে সুন্দরতম শিল্পকর্ম।

একদিকে এর শিল্পমান যেমন অবিশ্বাস্য তেমনি এতে ব্যাবহৃত প্রযুক্তি গবেষকদের তাক লাগিয়ে দিয়েছে । কোন যন্ত্র ছাড়াই একটি ১০ টন ওজনের পাথর কিভাবে এই স্থাপত্যটির উপর স্থাপন করা হয়েছে তা রিতীমত বিজ্ঞানীদের চিন্তায় ফেলে দিয়েছে ৷
কিন্তু যে গবেষমা ‘কলি টেপ’ কে আরও অবিশ্বাস্য করেছে ,তা হলো দশতম সহস্রাব্দ (যিশুখ্রিস্টের জন্মের পূর্বে) বানানো ৷ তার মানে এগারো হাজার পাঁচশো বছরের ও আগে ৷

এই মন্দির আবিস্কারের পর বিশেষজ্ঞরা এখন ধারনা করছেন, সম্ভবত কৃষির আগেই আগমন ঘটেছে সংস্কৃতির ৷ এর সাথে কিছুটা আধ্যাত্মিকতার যোগসূত্রও রয়েছে কিনা সেটাও খুঁজতে শুরু করেছেন তারা ৷
স্ট্যানফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের নৃতত্ত্ববিদ, “আয়ন হডা রের ভাষায়, ” সভ্যতার উৎপত্তি সম্পর্কে যা জানা ছিলো, এই মন্দিরটি তার অর্থের পরিবর্তন ঘটিয়েছে”৷
অবিশ্বাস্য হলেও সত্যি ,আমরা মানব সভ্যতার ইতিহাস সম্বন্ধে যেটুকু অজ্ঞাত ছিলাম, তার গোটা পরিবর্তন ঘটিয়ে দিয়েছে এই মন্দিরের আবিষ্কার ।




%d bloggers like this: